HeaderDesktopLD
HeaderMobile

বিনির্মাণের মধ্যে দিয়েই থমকে যাওয়া বিশ্বের প্রতিচ্ছবি নির্মাণ করবে দমদম পার্ক সার্বজনীন

0 18

কলকাতার শারদোৎসবে একটি বড় নাম দমদম পার্ক সার্বজনীন। প্রতি বছরই নিত্যনতুন থিম নিয়ে নিজেদের অস্তিত্বের জানান দেয় দমদমের এই পুজো কমিটি। তবে মহার্ঘ পুজোয় অভ্যস্ত এই পুজো কমিটির ভাঁড়ারে এবার টান দিয়েছে করোনা মহামারী। তাই নিজেদের পুরোনো অভ্যাস থেকে সরে এসে পুজোর বাজেটে ৬০ শতাংশ কাটছাঁট করেছে দমদম পার্ক সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটি। তবে সে জন্য পুজোর মানে কোনও কমতি রাখতে চাননি উদ্যোক্তারা। তাঁদের প্রয়াস ছিল এমন কিছু নির্মাণের, যা পুজোর ঐতিহ্যকে যেমন বজায় রাখবে, তেমনই কোভিড ভাইরাসের সংক্রমণের জেরে তৈরি হওয়ায় মানব দুনিয়ার অস্থির চিত্রকেও তুলে ধরবে।

তাই সব মিলিয়ে দমদম পার্ক সার্বজনীন পুজো কমিটির ৬৯তম বর্ষের পুজোর থিম হল, ‘বিনির্মাণ’। এই থিম ভাবনায় দেখা যাবে, অসম্পূর্ণ জ্যামিতির হরেক রকম রূপ। বাঁশের কাঠামো দিয়ে তৈরি এই অসম্পূর্ণ জ্যামিতিগুলিতেই লুকিয়ে থাকবে বিশ্ব মানবতার থমকে যাওয়ার প্রতিচ্ছবি।

‘বিনির্মাণ’ থিমে প্রাণ দেবেন শিল্পী কৃষাণু পাল। নিজের থিমের ব্যাখ্যায় যুবক শিল্পী বলেছেন, “২০২০-র দুর্গোৎসবে দমদম পার্ক সার্বজনীনের মণ্ডপ গড়ে উঠবে এভাবেই। দর্শকরা নিজেদের মতো করে দেখে নিতে পারবেন তাঁদের মন ও মননের দুর্গাকে। দুর্গা তো আসলে কোনও স্থিরচিত্র নয়, কেবল দৈবিক একটা ধারণাও নয়। দেবী দুর্গা আমাদের কাছে বোধ, বিশ্বাস, উপলব্ধি, কল্পনা ও শুভশক্তির প্রতিরূপ। বাঙালির কাছে দুর্গা মনে তার আবেগ, রোমান্টিসিজম।”

কৃষাণুর আরও ব্যাখ্যা, “প্রতিটি বাঙালির মননে দুর্গা হাজির হয় তার নিজস্ব রূপ নিয়ে। কখনও সে গণেশ জননী, কখনও সে উমা, কখনও বা মহিষাসুরমর্দিনী। দেবীকে নিয়ে এতটা কল্পনা বা আবেগ হয়তো দুর্গাপুজোতেই সম্ভব। আবার বিনির্মাণের শেষে আছে নির্মাণও। এমনই অর্থবহ ভাবে নির্মিত হবে আমাদের মণ্ডপ। এ মণ্ডপ কখনও হয়ে উঠবে বহু রেখার সমন্বয়ে গঠিত এক ত্রিমাত্রিক ক্ষেত্র, কখনও তা জ্যামিতিক।” এমন ভিন্ন ধারার একটি থিম  ভাবনায় আবহ সঙ্গীতে পরিবেশ তৈরির দায়িত্বে সঙ্গীত শিল্পী অভিজিৎ চক্রবর্তী। আলোর ব্যবহারে আশিস সাহা।

বাজেট যাই থাকুক, পুজোর প্রস্তুতি নিয়ে দমদম পার্ক সার্বজনীন পুজো কমিটির সক্রিয়তা এতটুকুও কমেনি। পুজো কমিটির যুগ্ম সম্পাদক শুভ্রজিৎ মজুমদার বললেন, “এ বছর যেন সবকিছুই আচমকা থমকে গিয়েছিল। আমাদের ইচ্ছে ছিল এবারের পুজোয় সেই থমকে যাওয়া সময়কে তুলে ধরতে। শিল্পী কৃষাণুর মুখে যখন এই ভাবনার কথা শুনি, তখনই আমরা সর্বসম্মতিক্রমে ‘বিনির্মাণ’ থিমকে বেছে নিই। হঠাৎ যেভাবে সব কিছু থেমে গিয়েছে, বাঁশের জ্যামিতিক আকৃতির অসম্পূর্ণ চেহারাই সেই সব কাহিনি দর্শকদের কাছে পৌঁছে দেবে।”

তবে, পুজোর হাজারো ব্যস্ততাতেও নিজেদের নাগরিক দায়িত্ব কিন্তু ভোলেননি দমদম পার্ক সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটির সদস্যরা। করোনা থেকে উমফান ঘূর্ণিঝড়, সবেতেই বিপর্যস্ত মানুষের পাশে থেকেছেন তাঁরা। উৎসবের আনন্দে যাতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের মহামারী কাউকে স্পর্শ না করতে পারে, সেভাবেই দর্শকদের মণ্ডপে আমন্ত্রণ জানানোর পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছেন তারা।

(ছবি : স্নেহাশিস দাস)
You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.