HeaderDesktopLD
HeaderMobile

পুজোর আগে ত্বক ও চুলের যত্নে জাদু দেখাতে পারে ডিম

0 657

“সানডে হো ইয়া মানডে, রোজ খাও আনডে” এটা তো আমাদের রোজের কথা। ডাক্তাররাও সাজেস্ট করেন রোজ একটা করে ডিম খেতে। ডিম আমাদের শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন সরবরাহ করে। ডিমে উপস্থিত ভিটামিন ও ফ্যাটি অ্যাসিডও আমাদের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সহায়তা করে। ডিম যে আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় সেটা মোটামুটি আমরা সকলেই জানি। কিন্তু ডিমের সাদা অংশ আর কুসুম আলাদা করে ত্বক ও চুলের জন্য ভীষণ উপকারী  সেটা কি জানেন?

Benefits of Egg For Skin and Hair

বাজার চলতি প্রোডাক্টে এমন কিছু কেমিক্যাল থাকে যা আমাদের চুল আর ত্বকের স্বাস্থ্য খারাপ করে। আবার নিজেদের রান্নাঘরে এমন কিছু উপাদান সবসময় থাকে যা সেই ড্যামেজ রিপেয়ার করে খুব সহজে। ডিম হল তাদের মধ্যে একটা। ডিমের প্রোটিন ত্বকের টিস্যু মেরামত করে মুখের ত্বককে  টানটান রাখে আর একইসাথে চুলের গোড়া মজবুত করে। ডিম আমাদের শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন সরবরাহ করে যা চুলের বৃদ্ধিতেও গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে উপস্থিত ভিটামিন এ বলিরেখা কমাতেও সাহায্য করে।

আসুন দেখে নিই চুল ও ত্বকের জন্য সঠিক পদ্ধতিতে কিভাবে ব্যবহার করবেন ডিম।

ত্বকের যত্নে ডিম

তৈলাক্ত শুষ্ক যেকোনো ধরনের ত্বকের জন্য ডিম খুব উপকারী। ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে এক টেবিল চামচ লেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই প্যাকটি তৈলাক্ত ত্বকে খুব ভালো ভাবে কাজ করে। প্যাকটি মুখে লাগিয়ে ১০মিনিট রেখে ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। তারপর

হালকা অয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। এতে ত্বক টানটান থাকে। হাইড্রেটেডও থাকে।

Beauty Benefits Of Eggs- Tips And Applications

শুষ্ক ত্বকের জন্যও একইরকম গুরুত্বপূর্ণ ডিম। এক্ষেত্রে ব্যবহার করব ডিমের কুসুম। এক টেবিল চামচ মধু, কয়েক ফোঁটা আমন্ড ওয়েল ডিমের কুসুমের সঙ্গে ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন।  প্যাকটি মুখে লাগিয়ে ১৫মিনিট রাখুন। তারপর ইষদুষ্ণ জলে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বক প্রাণবন্ত দেখায় এবং প্রাকৃতিক ভাবে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে।

চুলের যত্নে ডিম

সুন্দর ত্বকের সাথে সাথে লম্বা ঘন চুলের স্বপ্নও অনেকে দেখেন। সঠিক পদ্ধতিতে নিয়মিত চর্চা করতে পারলে আপনি মনমতো ফলাফলও পেতে পারেন।

How to Apply Eggs on Hair - FashionBuzzer.com

২ থেকে ৩ টে ডিমের কুসুম, এক চামচ অলিভ অয়েল, এক চামচ নারকেল তেল ভাল করে মিশিয়ে নিন। এই প্যাকটি চুলের গোড়া থেকে শুরু করে সম্পূর্ণ চুলে লাগিয়ে এক ঘণ্টা রেখে দিন। তারপর ঠান্ডা জলে ধুয়ে শ্যাম্পু করুন। এতে চুল প্রাকৃতিক উপায়ে কন্ডিশন্ড হবে। নিষ্প্রাণ, রুক্ষ চুলের প্রাণ ফিরিয়ে আনবে। ড্যামেজও সারাতেও কাজ করবে। চুল করে তুলবে আরও নরম।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.