HeaderDesktopLD
HeaderMobile

এবার পুজোয় কোন ট্রেন্ডের শাড়ি হিট, খবর দিল প্রিয়গোপাল বিষয়ী

0 868
“তোমার আনন্দ ওই গো
তোমার আনন্দ ওই এল দ্বারে, এল এল এল গো, ওগো পূরবাসী।
বুকের আঁচলখানি, সুখের আঁচলখানি –
দুখের আঁচলখানি ধুলায় পেতে আঙিনাতে মেলো গো…”

আশ্বিনের শারদ প্রাতে শিউলির গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে। সন্ধের পর বাড়ির ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে বা রাস্তা দিয়ে হাঁটার সময় ছাতিম ফুলের গন্ধ যদি পান তাহলে বুঝবেন পুজোর আর বেশি দেরি নেই। এবারে আপনি খেয়াল না রাখলেও, প্রকৃতিই জানান দিয়ে দিচ্ছে শরৎ এসে গেছে ।

উৎসবের মরসুম। আর কয়েকদিন পরেই সোনালি আলোয় উদ্ভাসিত হবে শহর, গ্রাম, মফস্বলের অলিগলি। নরম আলোর ছোঁয়ায় শান্ত হবে মন, প্রাণ।  তাতেই গত কয়েক মাস পর মনখারাপের মনে একটু আনন্দ তো হয়েইছে।

প্রকৃতি তো সেজে উঠেছে। আপনি সাজবেন না? পুজোর দিনগুলোতে সনাতনী সাজে নিজেকে এবারও সাজিয়ে তুলুন। সাজের মধ্যে যেন থাকে একটু আধুনিকতার ছোঁয়া। আপনার সাজ পোশাকে ফুটিয়ে তুলুন নিজের ব্যক্তিত্ব, রুচি। সাধারণ পোশাকের সঙ্গে রুচি সম্মত সাজতে পারলে আপনি হয়ে উঠবেন সবার থেকে আলাদা। আধুনিক যুগের কমবয়সী মেয়েরা ড্রেসের পাশাপাশি শাড়ি কেনার দিকেও ঝোঁকে বিশেষ করে উৎসবে পার্বনে। শুধু বয়স্করা না, যুবতী মেয়েরাও লাল পেড়ে সাদা শাড়িতে সাজতে চায় অষ্টমীর সকালে।

বছরকার দুর্গাপুজো থেকে শুরু করে বিয়ের মরসুম পর্যন্ত মেয়েদের শাড়ি পরার হিড়িক পড়ে। স্বাভাবিক ভাবেই আজকালকার ব্যস্ত জীবনে অনেকেই সবসময় শাড়ি পরতে বিশেষ পছন্দ করেন না। তবে প্রতিটা অনুষ্ঠানের সাজ যেন আলাদা রকমের হয়। পুজো আর বিয়েবাড়ির সাজের মধ্যে পার্থক্য রাখা উচিত, এমনটাই জানালেন প্রিয়গোপাল বিষয়ীর ডিরেক্টর সৌম্যজিৎ লাহা।

তাঁর কথায়, “অবশেষে পুজো হচ্ছে। যদিও পুজোর সময় বেরোতে সাহস পাচ্ছেন না অনেকেই। কেউ কেউ বলছেন বাড়িতে থেকেই পুজো কাটাবেন। আবার কেউ বলছেন অষ্টমীর অঞ্জলি দেওয়াটা মাস্ট, তাই সকালে বেরোবেনই।”

পুজোয় বেরোবেন কি বেরোবেন না সেটা ব্যক্তিগত ব্যাপার। তাই বলে কি এবারে নতুন জামা-কাপড়ও কিনবেন না!

দীর্ঘদিন লকডাউন চলাকালীন অনলাইন শপিংয়ে ঝোঁক বেড়েছিল মানুষের। এবার ধীরে ধীরে দোকান পাট খুলে যাওয়ায় রাস্তায় নেমে কেনাকাটা করতে ইতিমধ্যেই শুরু করেছেন তারা। এই সময়ে জেনে নিন এবার পুজোর শাড়ির লেটেস্ট ট্রেন্ড। লাস্ট মিনিট সাজেশন দিলেন সৌম্যজিৎবাবু।

লকডাউনের কারণে তাঁতিরা বহুদিন কাজ করতে পারেন নি। ফলে শাড়িতে নতুনত্ব কিছু না এলেও ট্রেন্ড কিছুটা বদলেছে। পুজোর সকালে সফট সোবার কালারের শাড়ি পরতে বলছেন তিনি। দিনের বেলার জন্য খাদি, সুতির হ্যান্ডলুম, লিনেন, ঢাকাই জামদানি সাজেস্ট করছেন। প্রিয়গোপাল বিষয়ীতেই পেয়ে যাবেন তাঁদের নিজস্ব ডিজাইনের কালারফুল হ্যান্ডলুম শাড়ি।

কলমকারির বদলে বাজারে এসে গেছে আজরাখ। এই শাড়ির নানা ভ্যারাইটিও চলে এসেছে। আজরাখ প্রিন্টের মলমল সুতির শাড়ি, লিনেন, মোডাল সিল্কের চাহিদাই এখন সবচেয়ে বেশি। রাস্ট, মিডনাইট ব্লু, ব্ল্যাক কালারের আজরাখ শাড়ি একটা কিনতেই পারেন।

Party Wear Printed Ajrakh Modal Silk Saree, 6.5 Meter, With Blouse Piece,  Rs 7800 /piece | ID: 20775376362

ঢাকাই জামদানি শাড়ির আবেদন চিরকালই আলাদা। জামদানি শাড়ির প্রতি মানুষের ভালবাসাও অটুট। অষ্টমীর অঞ্জলি হোক বা ষষ্ঠীর সকাল, মেয়েরা পুজোর সময় অন্তত একটা ঢাকাই জামদানি শাড়ি কিনবেনই। এবারে জামদানি শাড়িতে কাঁথা স্টিচের কাজ করে নতুনত্ব এনেছে প্রিয়গোপাল বিষয়ী।

রাতের জন্য দুপিয়ান সিল্ক অথবা তসরের শাড়ির কথা ভাবতে পারেন। তসরের শাড়ির মাধুর্য কোনও দিনই ফ্যাকাসে হয়নি। যে কোনও অনুষ্ঠানেই তসরের শাড়ি মানানসই। তাছাড়া সিল্ক, কাঁথা স্টিচের শাড়ি পরা যেতে পারে। রঙিন অথচ শাড়িতে কম জরির কাজ এমন শাড়ি পরতে বলছেন তিনি।

এসবের মধ্যে একটু ডিফারেন্ট কিছু পরতে চাইলে তসর বেনারসি কিনতে পারেন। বয়স্করা লাল পাড় সাদা শাড়ি পরতে বেশি পছন্দ করেন। গরদ বাদ দিয়ে সাদা লাল পেড়ে তসর বেনারসি উপহার দিতে পারেন।

সারাবছর যে রঙের জামা-কাপড় পরেন তার থেকে আলাদা কিছু ট্রাই করুন। অরেঞ্জ, নিয়ন গ্রিন, ইলেকট্রিক ব্লু। এই রংগুলো সারাবছর মানুষ পরেন না। পুজোর কটাদিন রাতে সাজার জন্য এই রংগুলো ভেবে দেখতে পারেন।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.