HeaderDesktopLD
HeaderMobile

পুজোয় কলকাতার ভিড়ে ক্লান্ত? চলুন ঘুরে আসি পরেশনাথ পাহাড়ে

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পুজোর কলকাতায় ঝকঝকে আলো, থিকথিকে ভিড় আর হুল্লোড়ে বছর বছর একঘেয়ে লাগে অনেকেরই। আর তাই ঠিক পুজোর দিনগুলোতে কুড়িয়ে পাওয়া অখণ্ড অবসর কাটাতে অনেকেই পাড়ি দেন বাংলার বাইরে কোনও ঝটিকা সফরে (travel)। বেশি না, দেড়-দু’দিন বড়জোর তিন দিনের সময়সীমা হাতে নিয়েই নিশ্চিন্তে বেড়িয়ে আসা যায় কাছাকাছি কোথাও। তাতে পুজোর একঘেয়েমি যেমন কাটে, তেমন মেলে অন্যরকম অনুভূতিও।

দিন দুয়েকের এমন ঝটিকা সফরের জন্য কিন্তু একেবারে উপযুক্ত জায়গা পরেশনাথ পাহাড়। রাজ্যের সীমানা পেরিয়ে ঝাড়খণ্ডের গায়ে দাঁড়িয়ে ছোটখাট এই পাহাড়। তবে পরেশনাথকে ঘিরে গড়ে ওঠা আবহ মনভোলানো। পরেশনাথ পাহাড়ের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ ১৩৫০ মিটার উঁচু। শুক্রবার দেখে এই পরেশনাথের উদ্দেশে বেরিয়ে পড়াই যায়। পুজোতেও দিন দুয়েকের জন্য আলোর কলকাতা থেকে ছুটি নিয়ে ঘুরে আসা যায় পরেশনাথ পাহাড়ে।

কীভাবে যাবেন? রইল গাইডলাইন।

পরেশনাথগামী যে কোনও ট্রেনে চেপে নেমে পড়তে হবে পরেশনাথ স্টেশনে। স্টেশন চত্বরেই থাকার জায়গা পাওয়া যায়। ঘর, বাথরুম-সহ খাওয়াদাওয়ার ব্যবস্থা, সব আছে। স্টেশন থেকে মিনিট চল্লিশের পথ মধুবন। অটো কিংবা ভ্যানে চড়ে মধুবন গেলে হোটেল বা গেস্টহাউজের অপশন আরও বেশি পাওয়া যাবে। হোটেল ভাড়া সাধ্যের মধ্যেই।

হোটেলে বিশ্রাম নিয়ে গাড়ি ভাড়া করে শুরু হোক ঘুরুঘুরু। পরেশনাথ পাহাড়ের গা বেয়ে রাস্তা বানানো পাথর কেটে। ছবির মতো সুন্দর সেই রাস্তার উপর দিয়েই পৌঁছে যাওয়া যায় মন্দিরে। জৈন মন্দিরের শান্ত পরিবেশে কখন যে সময় কেটে যাবে বুঝতেই পারবেন না।

এছাড়া পরেশনাথ পাহাড়ের কাছাকাছি দেখার জায়গা রয়েছে খাণ্ডলি ড্যাম। অটো করেই চলে যাওয়া যায় সেখানে। ভাড়া যৎসামান্য। ড্যাম ঘিরে পর্যটকদের জন্য মনোরম পার্ক তৈরি করা হয়েছে। পার্কে বোটিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে। এমনকি ট্রেকিংয়ের মজাও নেওয়া যাবে সেখানে। তবে সবটাই ন্যূনতম ভাড়া দিয়ে টিকিট কেটে।
খাওয়াদাওয়া সব কিছুই পাওয়া যায় হোটেলে। তবে বিখ্যাত লিট্টি একবার অন্তত চেখে দেখতেই হবে। কলকাতার লিটটি আর ঝাড়খণ্ডের পরেশনাথ পাহাড়ের বুকে লিট্টির স্বাদই আলাদা।

ঘোরা শেষে আবার ট্রেনে চেপে ফিরে আসা যায় অনায়াসে। পুজোর কলকাতা থেকে দু-তিন দিনের মুক্তি চাইলে পরেশনাথ পাহাড় অন্যতম আকর্ষণ। তবে ঘোরার পরিকল্পনা করার সময় মাথায় রাখতে হবে কোভিডবিধির কথাও। দুটি ভ্যাকসিনের সার্টিফিকেট অথবা আরটি পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট যে কোনও হোটেল কিংবা গেস্ট হাউজে আবশ্যিক।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.