HeaderDesktopLD
HeaderMobile

বংশে কন্যাসন্তান আসুক, সেই প্রার্থনায় শুরু হয়েছিল আদ্রার দুর্গাপুজো

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বংশে একটি কন্যাসন্তান (girlchild) আসুক, বড় সাধ ছিল রাজারাম মিশ্রের। ঠিক করেছিলেন, বারাণসী যাবেন। অন্নপূর্ণা মন্দিরে পুজো দিতে। তোড়জোড় যখন চলছে, হঠাৎই স্বপ্নে এল ফুটফুটে এক কন্যা। পরনে লালপেড়ে গরদের শাড়ি। সে বলল গ্রামে দুর্গাপুজো করতে।

পুরুলিয়ার আড়ড়া গ্রামের মিশ্র পরিবারের তিনশো বছরেরও বেশি পুরনো দুর্গাপুজোর সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে এমনই জনশ্রুতি। কন্য়াসন্তানের আকাঙ্ক্ষায় পুজো শুরু হয়েছিল সেখানে। এখনও সেখানে পুজোর সমস্ত দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন বাড়ির মেয়েরাই।

পুরুলিয়ার রেলশহর আদ্রার পাশেই আড়রা গ্রাম। ৩১৭ বছর আগে সেখানেই মিশ্র বাড়ির দুর্গাপুজোর সূচনা। সেসময় পরিবারে ছিল কন্যার আকাল। দেবীর স্বপ্নাদেশের পর কাশীপুর রাজার অনুমতিতে প্রথমে অস্ত্র পুজো করেন মিশ্র পরিবার। তারপর ঘট স্থাপন করে পুজো শুরু হয়। এতেই নাকি মিশ্র পরিবার আলো করে জন্ম নেন কন্যারা। পরবর্তীকালে শাস্ত্রবিধি মেনে বৈষ্ণব মতে মূর্তি পুজোর প্রচলন হয়।

মিশ্রবাড়ির সেই পুজোই এবছর ৩১৭ বছরে পড়ল। সে নিয়ে গর্বিত পরিবারের সদস্যরা। জানালেন, আজও রীতিনীতি মেনেই পুজো হয়। পরিবারের সদস্যই পৌরোহিত্য করেন।

প্রতিবছর দেবী ঘরে আনার সময় মিশ্র পরিবার মনে করেন নিজের কন্যাকে ঘরে আনছেন। তাই আদর-যত্নের ত্রুটি রাখেন না। দশমীর পর আবার উমাকে ফিরিয়ে দেন মহাদেবের কাছে।

পরিবারে নারীরা যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনই বছর বছর দুর্গাপুজোয় নারীবন্দনাই করে চলে মিশ্র পরিবার। দেবীর কৃপায় এখন আর কন্যার অভাব নেই সংসারে। বংশ পরম্পরায় পুজোর ঐতিহ্য বয়ে নিয়ে চলেন বাড়ির মেয়েরাই।

স্বাস্থ্য সংক্রান্ত আপডেট পেতে পড়ুন দ্য ওয়াল গুড হেল্থ

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.